চট্টগ্রাম   শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১  

শিরোনাম

খুলনা বিভাগে করোনায় ৩২ জনের মৃত্যু : শনাক্ত ৫৩৯

খুলনা প্রতিনিধি :    |    ০৪:৫২ পিএম, ২০২১-০৭-০৩

খুলনা বিভাগে করোনায় ৩২ জনের মৃত্যু : শনাক্ত ৫৩৯

খুলনা বিভাগে ২৪ ঘন্টায় ফের বেড়েছে মৃতের সংখ্যা। তবে কমেছে আক্রান্তের সংখ্যা। বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে নতুন করে ৫৩৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগে শুক্রবার (২ জুলাই) বিভাগে ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছিল।
খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক রাশেদা সুলতানা জানান, খুলনা বিভাগের মধ্যে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় চুয়াডাঙ্গায় গত বছরের ১৯ মার্চ। করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত বিভাগের ১০ জেলায় মোট শনাক্ত হয়েছে ৫৯ হাজার ২৬০ জন। আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ১৬৮ জন। এ সময় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৯ হাজার ৬৫২ জন।
খুলনা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. শেখ সাদিয়া মনোয়ারা ঊষা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনার হাসপাতালগুলোতে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এমধ্যে খুলনা জেলার সাতজন। একই সময়ে ১৮০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৭৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। যা মোট নমুনা পরীক্ষার ৪১ শতাংশ।
বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের জেলাভিত্তিক করোনা সংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭৪ জনের। এ পর্যন্ত জেলায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৬ হাজার ২৩৭ জনের। মোট মারা গেছেন ২৮৫ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১১ হাজার ২৪৮ জন।
এদিকে শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার (৩ জুলাই) সকাল ৮ টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় খুলনায় তিনটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ছয়জন, জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে একজন ও বেসরকারি গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চারজনের মৃত্যু হয়েছে।
খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের ফোকাল পার্সন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, খুলনা করোনা ডেডিকেট হাসপাতালে গত ২৪ ঘন্টায় ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন-নগরীর ফুলবাড়িগেটের আনোয়ারা খাতুন (৩২), সোনাডাঙ্গার নাজমা (৪৪), রূপসার নুর ইসলাম (৬৬), ডুমুরিয়ার মোশারফ (৬৩), সাতক্ষীরার শ্যামনগরের সূবর্ণা (৫৫) ও যশোর সদরের মো. শরিফুল (৪২)। হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২১৩ জন। যার মধ্যে রেড জোনে ১১৩ জন, ইয়ালো জোনে ৬০ জন, আইসিইউতে ২০ জন ও এইচডিসিতে ২০ জন। গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হয়েছেন ৩৫ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরেছেন ২৬ জন।
গাজী মেডিকেল হাসপাতালের স্বত্তাধিকারী ডা. গাজী মিজানুর রহমান জানান, ২৪ ঘন্টায় হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চারজনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন, খুলনার মহানগরীর দারুস সালাম মসজিদ এলাকার মানসুরা বেগম (৫৩), ফুলতলার বিবেক কুন্ডু (৫৩), রূপসার রহিমনগর এলাকার আব্দুল মান্নান সরদার (৬০) ও বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার আওয়াল শিকদার (৭০)। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরো ১০৯ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে রয়েছেন ৯ জন ও  এইচডিইউতে আছেন ১০ জন। গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হয়েছেন ২৭ জন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১২ জন। পিসিআর ল্যাবে ৩১টি নমুনা পরীক্ষায় ২৫ জনের করোনা পজেটিভ এসেছে।
খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ ঘন্টায় যশোরের বারান্দিপাড়ার আলেয়া বেগম (৬৫) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৭০ জন, তার মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ ও ৩৭ জন মহিলা। গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হয়েছেন ১২জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭ জন।
এদিকে খুলনাঞ্চলে সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী হওয়ায় করোনা হাসপাতালে রোগীর চাপ বেড়েছে। করোনা হাসপাতালে ধারণক্ষমতার বাইরেও রোগী ভর্তি হচ্ছে। ফলে শয্যা সংকট দেখা দিয়েছে। রোগীর চাপ সামলাতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিট চালু করা হয়। তবুও প্রতিদিন রোগীর চাপ থাকছে। এ অবস্থায় পরিস্থিতি সামাল দিতে খুলনার আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে ৪৫ শয্যার করোনার নতুন ইউনিট চালু করা হয়েছে। শনিবার (০৩ জুলাই) সকাল ১০টায় শ্রম প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান ভার্চুয়ালি ইউনিটটি উদ্বোধন করেন। পরে রোগী ভর্তি নেওয়া শুরু হয়।
খুলনার শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. প্রকাশ চন্দ্র দেবনাথ জানান, স্বাস্থ্য অধিদফতরের গত ২৯ জুন (মঙ্গলবার) এক চিঠিতে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে করোনা ইউনিট চালুর নির্দেশ দেওয়া হয়। এরপর বুধবার (৩০ জুন) সকালে হাসপাতালের কনফারেন্স রুমে সব বিভাগীয় প্রধানদের নিয়ে বৈঠক হয়। বৈঠকে হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. এস.এম. মোর্শেদ সভাপতিত্ব করেন। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই হাসপাতালের উত্তর পাশের জরুরি বিভাগ সংলগ্ন প্লাস্টিক এ্যান্ড বার্ন ইউনিটের ২০টি এবং ফিজিকেল মেডিসিন এ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন বিভাগে ১৫টি বেড স্থাপন কার্যক্রম শুরু হয়। ওই ৩৫টি বেড ছাড়াও চতুর্থ তলার আইসিইউ বিভাগের ১০টি বেডও করোনার রোগীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়।
আবু নাসের হাসপাতালের করোনা ইউনিটের প্রস্তুতি সম্পর্কে ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. এস. এম. মোর্শেদ জানান, এখানে শুধু করোনা পজিটিভ রোগীদের ভর্তি করা হবে। আইসিইউ’র ১০টিসহ মোট ৪৫টি বেডে রোগী ভর্তি করা হবে।
এদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে লকডাউন বাস্তবায়ন করতে খুলনায় কঠোর অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন। বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া লকডাউনের দ্বিতীয়দিন শুক্রবার (০২ জুলাই)। চলবে ৭ জুলাই পর্যন্ত। খুলনায় লকডাউনে প্রয়োজনীয় কাজে বা যৌক্তিক কারণ ছাড়া বাইরে বের হলে গুণতে হচ্ছে জরিমানা। আর্থিক জরিমানা ছাড়াও শাস্তির বিধান চালু রয়েছে।লকডাউনে বাস্তবায়নে নগরীতে ৩৮টি ও জেলায় ২৬টি চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। এছাড়া সেনাবাহিনীর পাশাপাশি টহল দিচ্ছে বিজিবি এবং র‌্যাবের সদস্যরা। বন্ধ রয়েছে বাস ও ট্রেনসহ গণপরিবহন, মার্কেট, দোকানপাট, শপিংমল এবং সরকারি-বেসরকারি অফিস। বিধিনিষেধ অমান্য করায় খুলনা মহানগর উপজেলায় ৯৩ মামলায় ৯৩ জনের ৫৩ হাজার ৩৫০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
খুলনা জেলা প্রশাসনের মিডিয়া সেলের সূত্রে জানা যায়, এদিন সকাল থেকেই মহানগরে ৮ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট এবং উপজেলায় স্ব-স্ব উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। খুলনা মহানগরী ও উপজেলায় স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন ও কঠোর বিধি নিষেধ নিশ্চিতকরণে এখন পর্যন্ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে মোট ৯৩টি মামলায় ৯৩ জনকে ৫৩ হাজার ৩৫০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অভিযানে পুলিশ, আনসার, বিজিবি, সেনাবাহিনীসহ সকল সংশ্লিষ্ট আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে নিরলস পরিশ্রম চালিয়ে যাচ্ছে।
খুলনা জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. ইউসুপ আলী বলেন, লকডাউন বাস্তবায়নে জেলা ও মহানগরীতে সেনাবাহিনীর ১০টি টিম, ২ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশের সদস্যরা কাজ করছেন।
র‌্যাব-৬ এর ডিএডি আতিকুর রহমান জানান, কৌতুহল নিয়ে মানুষ রাস্তায় নেমেছে। বেলা ১১ টায় তিন জনকে আর্থিক জরিমানা না করে আধাঘন্টা রোদে দাঁড় করিয়ে রেখে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। লকডাউন সফল করার লক্ষে তাদের দুইটি টিম মাঠে কাজ করেছে বলে জানান এই র‌্যাব কর্মকর্তা।
খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহাবুব হাসান বলেন, জেলার ২৬টি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে লকডাউন বাস্তবায়নে কাজ করা হচ্ছে। প্রতিটি উপজেলায় পুলিশ সদস্যরা মানুষকে সচেতন করতে কাজ করছে। কেউ যাতে অপ্রয়োজনে ঘরের বাহিরে বের না হয়, মাস্ক ব্যবহারসহ বিধিনিষেধ প্রতিপালনে মানুষকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।#

রিটেলেড নিউজ

রাজবাড়ী জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীকে পৌর আ’লীগের থে‌কে সংবর্ধনায় ক্রেস্ট প্রদান

রাজবাড়ী জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীকে পৌর আ’লীগের থে‌কে সংবর্ধনায় ক্রেস্ট প্রদান

রাজবাড়ী, প্রতিনিধি :: :     রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক স‌ন্মেল‌নে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলী‌গের সাধারণ স...বিস্তারিত


কমলগঞ্জে ট্রেনে কাটা পড়ে ১ জনের মৃত্যু

কমলগঞ্জে ট্রেনে কাটা পড়ে ১ জনের মৃত্যু

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: :   মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর  রেলক্রসিং এলাকায়  সিলেটগামী আন্ত:নগর কালনী এক...বিস্তারিত


কমলগঞ্জে বিএমএসএফ’র পক্ষে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান

কমলগঞ্জে বিএমএসএফ’র পক্ষে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: :   মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম-বিএমএসএফ’র পক্ষে কমলগঞ্জ উপজেলা নির...বিস্তারিত


টেকনাফে লুঙ্গির গোছায় ৫ হাজার ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

টেকনাফে লুঙ্গির গোছায় ৫ হাজার ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

কক্সবাজার, প্রতিনিধি : :   কক্সবাজারের টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা ইয়াবাসহ নামে নুর আহাম্মদ (৪০) নামে এক ম...বিস্তারিত


কুমিল্লার ঘটনায় গ্রেফতার ৪১

কুমিল্লার ঘটনায় গ্রেফতার ৪১

কুমিল্লা প্রতিনিধি : :   কুমিল্লায় পূজামণ্ডপ ঘিরে উত্তেজনা ও সংঘর্ষের ঘটনায় চার মামলায় এ পর্যন্ত ৪১ জনকে গ্রেফতার করে...বিস্তারিত


বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে ক্যাম্পাসে টিকা পাচ্ছে জবি শিক্ষার্থীরা

বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে ক্যাম্পাসে টিকা পাচ্ছে জবি শিক্ষার্থীরা

জবি প্রতিনিধি :   জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবির)  আধুনিক মেডিকেল সেন্টার থেকে আগামী ২১শে অক্টোবর থেকে টিকা বুথ ব...বিস্তারিত



সর্বপঠিত খবর

পার্বত্য ভিক্ষসংঘু ও পার্বত্য ত্রাণ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণ 

পার্বত্য ভিক্ষসংঘু ও পার্বত্য ত্রাণ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণ 

বিহারী চাকমা, রাঙামাটি : :   রাঙ্গামাটির লংগদু কলেজে পার্বত্য ভিক্ষুসংঘ ও পার্বত্য ত্রাণ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দরিদ্র ও ম...বিস্তারিত


“ হিন্দুরা বাংলার দেশপ্রেমি নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে আখ্যায়িত করে অশুর আর বাংলার দুশমন ক্লাইভকে আখ্যায়িত করে মা দূর্গা! ”

“ হিন্দুরা বাংলার দেশপ্রেমি নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে আখ্যায়িত করে অশুর আর বাংলার দুশমন ক্লাইভকে আখ্যায়িত করে মা দূর্গা! ”

নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা :- :   নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা :- পলাশী একটি বিশ্বাসঘাতকতার ইতিহাস। এই ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিল...বিস্তারিত



সর্বশেষ খবর